~ "আমার হাজব্যান্ড বাই-সেক্সুয়াল। ও যেসব ছেলেদের সাথে এসব করে তাদের একটা নিজস্ব গ্রুপই আছে। আমার বিয়ের ৮ বছর পর আমি এটা জানতে পেরেছি। আপা আমি কেম্নে সহ্য করব বলেন? আমার ঘেন্নায় মাঝে মাঝে মরে যেতে ইচ্ছা করে। আমাদের ঘরে দুইটা বেবি। ওদের মুখের দিকে তাকায় দাঁত কামড়ে পড়ে থাকি। কাকে বলব? কে বিশ্বাস করবে।"

~ "আজ ৬ বছর আমাদের বিয়ে হয়েছে! অথচ এখন ও আমাদের মধ্যে ফিজিক্যাল রিলেশনশিপ হয়নি। আমার ওয়াইফ এতো ভয় পায় আমি ওকে দেখেই পিছিয়ে যাই! কে বিশ্বাস করবে? এভাবেই কাটছে দিনের পর দিন! এ যে আমার জন্যে কত বড় এক পরীক্ষা আমি কাউকে বুঝাতে পারিনা ডক্টর।"

~ ২৩ বছরের মেয়ে। ভারি মিষ্টি দেখতে। উচ্চবিত্ত পরিবার থেকে আসা। ১৯ বছর বয়স থেকে নিয়মিত পর্ণোগ্রাফি দেখে। রিস্কি সেক্সুয়াল বিহেভিয়ার এর হিস্ট্রি আছে। এক্সট্রিম গ্রুপ সেক্স এডিক্ট। এসব করতে করতে একটা সময় আস্তে আস্তে তার মধ্যে অপরাধবোধ তৈরি হয়। লাস্ট ৬ মাসে হতাশা থেকে, একাকিত্ব থেকে ২ বার সুইসাইড করার চেষ্টা করেছে। পারেনি। অনেক চেষ্টা করছে কিন্তু কিছুতেই এইসব অভ্যাস ছাড়তে পারছেনা।

~ "আমি Foot Fetish। আমার কালেকশনে ২০০০+ মেয়ের পায়ের ছবি আছে যেগুলো দেখলে আমি সেক্সুয়ালি এক্সাইটেড হই। একই পা বারে বারে দেখতে আমার ভাল লাগেনা। আমি বুঝি এটা ঠিক স্বাভাবিক না। কিন্তু সুস্থ যৌন জীবনে কিভাবে ফিরব বা আসলেই ফেরা যায় কীনা আমার জানা নেই। এসব লুকিয়ে রাখতে রাখতে আমি ক্লান্ত, হতাশ!"

~ "প্লিজ ডাক্তার! আমাকে জাস্ট হরমোনের ওষুধটার নামটা বলে দেন। আমি ছেলে হব। যেভাবেই হোক। আমি মেয়ে হয়ে থাকতে চাইনা"

~ "আমি তো কারো সাথে সরাসরি কিছুই করিনা। জাস্ট সেক্স টেক্সটিং করি। ফোন সেক্স করি। আমার হাজব্যান্ডের তাতে এতো মাইন্ড করার কি আছে আমি বুঝিনা! ও নিজেইবা আমাকে কতটুকু টাইম দেয়? থাকে তো সেই বাইরে বাইরেই! আমার অনেক কলিগরাও এমন করে। এতোটুকু প্রগ্রেসিভ হওয়াতে কার কি ক্ষতি আমি বুঝিনা!"

~ নব বিবাহিত দম্পতি। বিয়ের ৩ মাসে হাজব্যান্ড প্রতি রাতে ওয়াইফের সাথে ওরাল সেক্স করেছে। স্ত্রীর শত কান্না তাকে থামাতে পারেনি। হাসব্যান্ড এর সহজ স্বীকারোক্তি- "আমি পর্ণ দেখে এটাকেই আমার জন্যে বেস্ট মনে করেছি। আমার বউ পারছেনা এটা তার সমস্যা। এরকম করা না গেলে কি আর পর্ণোগ্রাফিতে ফাইজলামি করতে দেখায়!"

~ "আমার হোস্টেলে অনেকেই হোমো-সেক্সুয়াল। আমি ও অভ্যস্ত হয়ে গেছি। আগে আমার মেয়েদের দেখে এক্সাইটেড লাগতো। কিন্তু ৪ বছর ছেলেদের সাথে করতে করতে এখন মেয়েদের দেখে তেমন ফিল আসেনা। কিন্তু আমি স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে চাই!"

~ "আমি ১৭ বছর বয়স থেকে নিয়মিত পর্ণ দেখি। এখন বয়স ৪২। গত ৭ বছর সেক্স এর ওষুধ না খেলে সেক্সই করতে পারিনা। পর্ণ দেখতে দেখতে এখন ওসব দিয়েও এক্সাইটেড হইনা! এর কারণ কি?"

~ ''প্রতিরাতে আমাকে মেরে মেরে তারপরে সে সেক্স করে। আমি ব্যথায় চিৎকার না করলে সে নাকি এক্সটাইটেড হয়না! ওর অনেক টাকা। আমি গরীব ঘরের মেয়ে। আমাকে বাবা-মা বলে মুখ চেপে এখানে পড়ে থাকতে! কত দিন ডক্টর! কতদিন? আপনিও তো একটা মেয়ে! আপনি বলেন? আমি কি সুইসাইড করলেই ভাল না?"

--------------------------

আপনাদেরকে নাম-পরিচয় গোপন রেখে এতোক্ষণ কতগুলো কেস হিস্ট্রি শোনালাম। এঁরা সবাই আমার বিভিন্ন সময়ের রোগী/ক্লায়েন্ট বলতে পারেন।

সমাজটা এভাবেই আস্তে আস্তে বদলে যাচ্ছে।

আমাদের জীবন জটিল হচ্ছে। হিসেবগুলো মিলছে কম। 'সুখ' নামক এক মরীচিকার পিছে আমরা ছুটছি যে যার মত! কিন্তু সব কিছুর মাঝেও কিসের যেন একটা হাহাকার! কি যেন একটা নেই!

'যৌনস্বাস্থ্য' ভীষণ কম্প্রিহেন্সিভ একটা জিনিস। বাইরে থেকে এর গভীরতা, জটিলতা, সহজতা কিছুই অনুমান করা যায় না।

প্রত্যেকটা কেস আমার কাছে তাই একেকটা রহস্য গল্পের মত যার প্রত্যেকটা চরিত্রকে বাঁচানোর অদ্ভুত এক তাগিদ অনুভব করি।


Dr Shusama Reza (MBBS, MD)
Lead Psychosexologist & Head of Sexual Medicine Unit
LifeSpring Limited