আল্লাহ তায়ালা প্রত্যেক বস্তুর প্রভাব দূর করতে এর বিপরীত অন্য কিছু রেখেছেন। আগুন লাগলে তাই পানি ঢালতে হয়। শীতকে গরম কাপড় দিয়ে রুখতে হয়। ক্ষুধা লাগলে খাবার খেতে হয়।

জ্বীনে আছর করলে রুকইয়াহ করতে হয়। গুন্ডাদের লাঠি দিয়ে শায়েস্তা করতে হয়।

এসব আল্লাহর হিকমতের অংশ। আল্লাহ যে ব্যবস্থা করেছেন মানুষের ঐ ব্যবস্থাই অবলম্বন করতে হবে যতক্ষণ সে সক্ষম থাকবে।

মানুষ গুন্ডা আসলে দুয়া পড়ে ফু দিলে যাবে না। ডান্ডা লাগবে। আবার জ্বিন গুন্ডাকে ডান্ডা দিয়ে হবে না।

যে আল্লাহর নির্দেশিত পথ অবলম্বন না করে সবকিছু একই ট্রিটমেন্ট দিয়ে শেষ করতে চায় সে জাহালাতের স্তরই অতিক্রম করেনি। বাসায় ডাকাত পড়েছে আর আপনি বুখারি খতম করছেন, এর মানে আপনি যেন আল্লাহকে বলছেন আপনার পছন্দের পদ্ধতিতে সমাধান দিতে। কিন্তু এটা হবে না।

দুয়া দুয়ার জায়গায়। লাঠি লাঠির জায়গায়। আল্লাহর নবী যুদ্ধ প্রস্তুতি পূর্ণ করার পরেই দুয়ায় হাত তুলেন।

প্রসঙ্গ: উম্মাহর উপর শত্রুদের সামষ্ঠিক আক্রমণের বিপরীতে শুধুই দুয়ার আমলের কথা বলা