কোন এক প্রসঙ্গে এক সহকর্মী তার এক নিকটাত্মীয়ের গল্প শুনালেন। অল্প কিছুদিন আগেই যিনি ৫২ বছর বয়সে ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন।

বসুন্ধরাতে তার দুটো প্লট, মুহাম্মাদপুরে একটি পাঁচ তালা বাড়ি এবং শ্যামলীতে দুটো ফ্ল্যাট রয়েছে। তার ইন্তেকালের পর তার স্ত্রী ও তিন ছেলে সেই সব বাড়ির ভাড়া ও ব্যবসার লাভ থেকে মোটামুটি প্রতি মাসে চার লক্ষ টাকা করে পাচ্ছেন। কিন্তু তারপরও তাদের কাছে মনে হচ্ছে, তাদের সংসারে কেন এত টানাটানি।

যখন এই লোকের কাহিনী শুনছিলাম, নিজের অজান্তেই কেমন যেন আনমনা হয়ে গেলাম। আমাদের এই চল্লিশ পঞ্চাশ বছরের জীবনটা চালানোর জন্য আসলেই কি এতকিছু দরকার! কোটি টাকার ব্যাংক ব্যালেন্স, দুই হালি জমি কি আসলেই এনে দেয় সেই সুকুন বা প্রশান্তি, যা লাভের জন্য আমরা এত কষ্ট করি! দুটো জমি হওয়ার পর তাহলে কেন কেউ বলে না, অনেক হয়েছে, আর নাহ! কেন প্রতিযোগিতার এই নেশা চলতে থাকে কবর পর্যন্ত!

এক সাহাবি। আবুদ দাহদাহ (রা)। জান্নাতের একটি গাছের আশায় ৬০০ খেজুর গাছ রাসুলের এক কথায় সদাকাহ করে দিয়েছিলেন। অথচ আমাদের রেইস একের পর এক রিয়েল এস্টেট কেনাতেই সীমাবদ্ধ।

যুদ্ধের ময়দানে রাসুলের কাছে এসে সাহাবিরা জামা সরিয়ে দেখালেন, ক্ষুধার তাড়না কমানোর জন্য তারা পেটে একটি করে পাথর বেঁধে রেখেছেন। রাসুল তার জামা সরিয়ে দেখালেন, তার পেটে দুটো পাথর বাঁধা।

রাসুল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেছেন, নেক আমলের প্রতিদান দেয়া হবে। সবচেয়ে পরে যে জান্নাতে ঢুকবে তাকেও এই পৃথিবীর দশটার সমান জায়গার মালিক বানানো হবে। তাহলে সেই জায়গার মালিক হওয়ার জন্য সেখানকার কারেন্সি (নেক আমল) কী পরিমাণ আমরা এডভান্স করেছি?

পৃথিবীর ছোট্ট একটি দেশের ছোট্ট একটি শহরের এক খণ্ড জমির মালিকানা হাসিলের জন্য যতটুকু কষ্ট ও শ্রম আমরা দেই, তার শত ভাগের এক ভাগও কি শতগুন উত্তম জমির জন্য দেই?

اللهم لا تجعل الدنيا أكبر همنا

O Allah, don't make the dunya our biggest concern.